আইরিশদের বিপক্ষে যেমন হতে পারে বাংলাদেশের একাদশ

ইংল্যান্ডের হোয়াইটওয়াশের পর আজ ওয়ানডেতে আইরিশদের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। শনিবার সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড। ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর ২টায়।

ঘরের মাঠ বলে বেশ এগিয়ে স্বাগতিক বাংলাদেশ। পরিসংখ্যানও কথা বলছে স্বাগতিকদের হয়ে। দুই দলের ১০ ওয়ানডেতে সাতটি জয় বাংলাদেশের। এ ছাড়া এই সিরিজে বাংলাদেশের আছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জেতার তাজা আত্মবিশ্বাস। তাই আজকের ম্যাচে টাইগাররাই এগিয়ে থেকে মাঠে নামছে চোখবুজে বলা যায়।

তবে পরিসংখ্যান আর শক্তি দিয়ে আয়ারল্যান্ডকে মাপা সম্ভব না। কারণ নিজেদের দিনে তারা যে কাউকে হারাতে সক্ষম। ম্যাচের আগের দিন আইরিশ অধিনায়কও সেই সুরেই সতর্ক করেছেন টাইগারদের। তবে টাইগারদের সমীহ করে তাদেরই এগিয়ে রেখেছে সফরকারী অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বালবার্নি।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা সবশেষ ওয়ানডে ম্যাচের দল থেকে এই সিরিজের দলে পরিবর্তন এসেছে। ইংল্যান্ড সিরিজে অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ থাকলেও এই সিরিজে তাকে দেওয়া হয়েছে বিশ্রাম। তার বদলি হিসেবে ওয়ানডে দলে অভিষেক হতে পারে তৌহিদ হৃদয়ের।

সদ্যসমাপ্ত বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে দুর্দান্ত পারফরম করে সবার নজর কাড়েন হৃদয়। যার ফলে ইংলিশদের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা করে নেন। তবে দলের সঙ্গে থাকলেও ৫০ ওভারের সিরিজে সুযোগ হয়নি হৃদয়ের। কিন্তু টি-টোয়েন্টিতে সুযোগ পেয়েই কাজে লাগিয়েছেন এ ব্যাটার। তাই এবার হয়তো ওয়ানডে অভিষেকটাও হয়ে যেতে পারে।

অন্যদিকে ইংল্যান্ড সিরিজের দলে ছিলেন না ইয়াসির আলী রাব্বি। এবার ডাক পেয়েছেন আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচের দলে তাকেও দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে বাদ পড়তে পারেন আফিফ হোসেন। ব্যাট হাতে অবশ্য দুজনেরই সাম্প্রতিক ফর্ম খুব একটা স্বস্তিদ্বায়ক নয়।

সবশেষ সিরিজে স্পিন বোলিংয়ে বাংলাদেশকে এক হাত এগিয়ে রেখেছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু আইরিশদের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে তাকে পাওয়া যাচ্ছে না এটা নিশ্চিত। শুক্রবার দলীয় অনুশীলনের সময় ফুটবলে আঘাত পেয়েছেন এই অলরাউন্ডার।

আইরিশদের বিপক্ষে অভিজ্ঞ তাইজুল ইসলাম না থাকায় দলে অনেকটাই জায়গা পাকা নাসুম আহমেদের। জেনুইন স্পিনার হিসেবে তিনি ছাড়া আর কোনো অপশনও নেই তামিম-হাথুরুর কাছে।

পেসারদের মধ্যে লড়াইটা হবে বেশ জটিল। কাকে রেখে কাকে খেলাবেন তা নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হবে তামিম-হাথুরুকে। কেননা দলে ডাক পাওয়া পেসারদের মধ্যে সবাই সেরা ফর্মে রয়েছেন। নিজের পুরোনো ফর্মে ফিরেছেন মোস্তাফিজ। এ ছাড়া তাসকিন, হাসানরাও ভালো করেছেন শেষ ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে। এদিকে এত পেসার থাকার পরও দলে ডাক পেয়েছেন বাঁহাতি শরিফুল ইসলাম। তাই মূল একাদশে ঢোকার লড়াইটা মূলত হবে এবাদত হোসেন, হাসান মাহমুদ আর শরিফুলের মধ্যে। ফরম্যাট ও সাম্প্রতিক ফর্মের বিচারে সবচেয়ে বেশি সম্ভাবনা থাকবে এবাদত হোসেনের।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, তৌহিদ হৃদয়, আফিফ হোসেন, নাসুম আহমেদ, তাসকিন আহমেদ, হাসান মাহমুদ, মোস্তাফিজুর রহমান।

পূর্বের খবরআইসিসির গ্রেফতারি পরোয়ানায় কিছু যায় আসে না: রাশিয়া
পরবর্তি খবরজন্মবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভারতীয় হাইকমিশনারের শ্রদ্ধা