১ হাজার চারা রোপণ করে ৪০ হাজার টাকা পেলেন বাবুল

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় চারা রোপণ করলেই গাছপ্রতি ৪০ টাকা হারে পাচ্ছেন রোপণকারীরা।  বসতভিটায় ও ব্যক্তিগত পতিত জমিতে গাছ লাগানোর জন্য উদ্বুদ্ধকরণের লক্ষ্যে পরিবেশ রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমনে পরিচালিত বাংলাদেশ বন্ধু ফাউন্ডেশন এই অর্থ পরিশোধ করছে।

রোববার সন্ধ্যায় বাগাতিপাড়া পৌরসভার হল রুমে উপজেলার গাছের চারা রোপণকারী ৫০ জন মালিকের মধ্যে গাছ প্রতি ৪০ টাকা হারে ২ লাখ ৬৫ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়।

‘আমার মাটি আমার দেশ, গড়বো সবুজ বাংলাদেশ’ স্লোগানে ফাউন্ডেশনটি জলবায়ু বান্ধব বৃক্ষরোপণ প্রকল্প বিষয়ক আলোচনা ও উপজেলার গ্রাহকদের টাকা বিতরণ উপলক্ষ্যে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ওই অনুষ্ঠানে স্থানীয় কৃষক ও শিক্ষক ময়নুদ্দীন মো. আলমগীরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বাগাতিপাড়া পৌরসভার মেয়র একেএম শরিফুল ইসলাম লেলিন।

প্রধান আলোচক ছিলেন ফাউন্ডেশনের কো-অর্ডিনেটর বিভূতি ভূষণ সরকার।  বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড. ভবসিন্ধু রায়, ফাউন্ডেশনের রিজিওনাল এগ্রিকালচার ম্যানেজার কৃষিবিদ সোহেল রানা, জেলা ম্যানেজার হারুন আহম্মেদ, কৃষি প্রোগ্রাম সংগঠক বিদীত দাস, সহকারী কৃষি প্রোগ্রাম সংগঠক সেলিম রেজা প্রমুখ।

ফাউন্ডেশনের কো-অডিনেটর বিভূতি ভূষণ সরকার বলেন, বাংলাদেশ বন্ধু ফাউন্ডেশন সারাদেশে জলবায়ু বান্ধব বৃক্ষরোপণ প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় স্থানীয় জনগণের মাধ্যমে সারাদেশে ২০২৪ সালের মধ্যে ২ কোটি গাছের চারা রোপণ করা হবে। নির্ধারিত ৫০ রকমের যেকোনো গাছের চারা রোপণ করলেই প্রতিটি গাছের চারার জন্য ৪০ টাকা এবং পাঁচ বছর পর গাছ জীবিত থাকলে আবার প্রতিটি গাছের জন্য ১০ টাকা এবং পরের বছর আবারো ১০ টাকা হারে প্রদান করা হবে।

উপজেলার জামনগর ইউনিয়নের বজরাপুর এলাকার বাবুল হোসেন জানান, তিনি এক হাজার আম গাছের চারা রোপণ করে ফাউন্ডেশন থেকে ৪০ হাজার টাকা পেয়েছেন।  আব্বাস উদ্দীন বলেন, তিনি ৬৫০টি আম গাছের চারা রোপণ করে ২৬ হাজার টাকা পেয়েছেন।

পূর্বের খবররাশিয়ায় ব্লগার হত্যায় জড়িত সন্দেহে নারী গ্রেফতার
পরবর্তি খবরযে কারণে ‘মিস্টার ইন্ডিয়া’ ছেড়ে দিয়েছিলেন অমিতাভ বচ্চন