হঠাৎ মাঠ থেকে বের হয়ে যাওয়ার ব্যাখ্যা দিলেন তামিমের ভাই নাফিস ইকবাল

বিশ্বকাপের আগেই নতুন খেলের মেতেছে ক্রিড়াঙ্গন। তামিমের ভিডিওর পর সাকিবের সাক্ষাৎকার, সব মিলিয়ে উত্তাপ বাংলাদেশের ক্রিকেট। তামিম, সাকিবের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন মাশরাফির ছোট ভাই মোরসালিন। এবার সেই তালিকার সর্বশেষ সংযোজন নাফিস ইকবালের স্ট্যাটাস।

দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে প্রচারিত সাক্ষাৎকারে সাকিব নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচের আগে নাফিস ইকবালের দল ছেড়ে যাওয়ার সমালোচনা করেন। সাক্ষাৎকারটি প্রচারিত হওয়ার পর এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন তামিমের বড় ভাই নাফিস ইকবাল।

বুধবার দিবাগত রাত ২টা ১৮ মিনিটে দেওয়া স্ট্যাটাসে নাফিস ইকবাল লিখেন, আমি স্পষ্ট করতে চাই যে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডের সময় আমার জাতীয় দল ছাড়ার পদক্ষেপটি আবেগের বাইরে ছিল। তৃতীয় ওয়ানডের দিন সকালে আমাকে জানানো হয়, আমি বিশ্বকাপে দলের সঙ্গে টিম ম্যানেজার হিসেবে থাকবো না। গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেও এমন ঘটনা ঘটেছিল। আমিও মানুষ এবং অন্য সবার মতো আমারও আত্মসম্মান আছে।

তিনি আরও লিখেন, আমি অবশ্যই বিসিবি থেকে পদত্যাগ করিনি। আমার ছোট ভাই তামিম ইকবালের চলমান পরিস্থিতির সঙ্গেও আমার এই পদক্ষেপের কোনো সম্পর্ক নেই। আমি মাঠ থেকে বিদায় নেওয়ার ৬-৭ ঘণ্টা পর বিশ্বকাপ দল ঘোষণা করা হয়। আমি সেদিন বোর্ডের সঙ্গে প্রটোকল এবং আচরণবিধি পুরোপুরি বজায় রেখেছি। মাঠে আসার আগে প্রধান কোচ এবং পরে বিসিবির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আমার মতামত জানিয়েছিলাম।

জাতীয় দলের সাবেক এই ক্রিকেটার লিখেন, আমি নিশ্চিত করেছি যে, আমি প্লেয়ার লিস্টে নিয়মমাফিক স্বাক্ষর করেছিলাম এবং নিউজিল্যান্ড সিরিজের কাগজপত্র অ্যাকাউন্টস বিভাগে বুঝিয়ে দিয়েছিলাম। আর বিশ্বকাপের জন্য আমাকে দেওয়া দৈনিক ভাতা ফেরত দেওয়াসহ কোনো কাজ অর্ধেক করা হয়নি।

আরও পড়ুন: তামিমকে বিশ্বকাপ দলে না রাখার বিষয়ে এবার মুখ খুললেন সাকিব

তিনি আরও লিখেন, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি পরিস্থিতিগুলো কিছু সম্মানের যোগ্য। কেউ ঘটনাগুলো সম্পর্কে না জেনে তার মতামত দিতে পারে না। আমি আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে সৎ ছিলাম এবং জাতীয় দল পরিচালনার অংশ হিসেবে আমি সেরাটি দেওয়া নিশ্চিত করেছি এবং করে যাব।

বিশ্বকাপ দল ঘোষণার পূর্ব থেকেই সরগরম দেশের ক্রীড়াঙ্গন। তামিমের ভিডিওর পর সাকিবের সাক্ষাৎকার, সব মিলিয়ে উত্তাপ বাংলাদেশের ক্রিকেট। তামিম, সাকিবের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন মাশরাফির ছোট ভাই মোরসালিন। এবার সেই তালিকার সর্বশেষ সংযোজন নাফিস ইকবালের স্ট্যাটাস।

দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে প্রচারিত সাক্ষাৎকারে সাকিব নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচের আগে নাফিস ইকবালের দল ছেড়ে যাওয়ার সমালোচনা করেন। সাক্ষাৎকারটি প্রচারিত হওয়ার পর এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন তামিমের বড় ভাই নাফিস ইকবাল।

রাত ২টা ১৮ মিনিটে দেওয়া স্ট্যাটাসে নাফিস ইকবাল লিখেন, আমি স্পষ্ট করতে চাই যে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডের সময় আমার জাতীয় দল ছাড়ার পদক্ষেপটি আবেগের বাইরে ছিল। তৃতীয় ওয়ানডের দিন সকালে আমাকে জানানো হয়, আমি বিশ্বকাপে দলের সঙ্গে টিম ম্যানেজার হিসেবে থাকব না। গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগেও এমন ঘটনা ঘটেছিল। আমিও মানুষ এবং অন্য সবার মতো আমারও আত্মসম্মান আছে।

তিনি আরও লিখেন, আমি অবশ্যই বিসিবি থেকে পদত্যাগ করিনি। আমার ছোট ভাই তামিম ইকবালের চলমান পরিস্থিতির সঙ্গেও আমার এই পদক্ষেপের কোনো সম্পর্ক নেই। আমি মাঠ থেকে বিদায় নেওয়ার ৬-৭ ঘণ্টা পর বিশ্বকাপ দল ঘোষণা করা হয়। আমি সেদিন বোর্ডের সঙ্গে প্রটোকল এবং আচরণবিধি পুরোপুরি বজায় রেখেছি। মাঠে আসার আগে প্রধান কোচ এবং পরে বিসিবির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আমার মতামত জানিয়েছিলাম।

জাতীয় দলের সাবেক এই ক্রিকেটার লিখেন, আমি নিশ্চিত করেছি যে, আমি প্লেয়ার লিস্টে নিয়মমাফিক স্বাক্ষর করেছিলাম এবং নিউজিল্যান্ড সিরিজের কাগজপত্র অ্যাকাউন্টস বিভাগে বুঝিয়ে দিয়েছিলাম। আর বিশ্বকাপের জন্য আমাকে দেওয়া দৈনিক ভাতা ফেরত দেওয়াসহ কোনো কাজ অর্ধেক করা হয়নি।

তিনি আরও লিখেন, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি পরিস্থিতিগুলো কিছু সম্মানের যোগ্য। কেউ ঘটনাগুলো সম্পর্কে না জেনে তার মতামত দিতে পারে না। আমি আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ারে সৎ ছিলাম এবং জাতীয় দল পরিচালনার অংশ হিসেবে আমি সেরাটি দেয়া নিশ্চিত করেছি এবং করে যাব।

পূর্বের খবরযে কারণে থাকছে না ৩ দিনের ইন্টারনেট প্যাকেজ
পরবর্তি খবরঅপরিকল্পিত ঋণ ও ব্যয় বৃদ্ধির শঙ্কা