বিএনপির ১৭২ নেতাকর্মী কারাগারে

ঢাকা ও বরিশালে গ্রেফতার বিএনপির ১৪৬ নেতাকর্মীকে বৃহস্পতিবার কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাদের বুধবার গ্রেফতার করা হয়। একইদিন রাজধানীর পলটনে বিএনপির মহাসমাবেশে যোগ দিতে যাওয়ার পথে টাঙাইল বিএনপির ২৬ কর্মীকে ঢাকার আশুলিয়ায় আটক করেছে পুলিশ। তাদেরকেও কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আদালত প্রতিবেদক, ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ঢাকায় বুধবার জনসমাবেশ করেছে বিএনপি। এদিন রাজধানীর রমনা থানার বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলায় গ্রেফতার ৫০ জনসহ বিএনপির ১৩৪ জনের জামিন নামঞ্জুর করে বৃহস্পতিবার তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া অস্ত্র আইনের মামলায় ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী জিয়া উদ্দীন বাসিতের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। এদিকে বরিশাল ও ঢাকার আশুলিয়ায় গ্রেফতার বিএনপির ৩৮ নেতাকর্মীকেও কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রমনা থানার হোটেল মেরিনা ইন্টারন্যাশনালে অভিযান চালিয়ে জিয়া উদ্দীন বাসিতকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। রমনা থানা এলাকা থেকে বিস্ফোরক দ্রব্যসহ গ্রেফতার অন্য ৫০ জনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া পল্লবীতে এক, কাফরুলে দুই, ওয়ারীতে ১১, ক্যান্টনমেন্টে এক, খিলক্ষেতে চার, নিউমার্কেটে এক, মোহাম্মদপুরে এক, শেরেবাংলা নগরে পাঁচ, মিরপুরে সাত, বনানীতে ১৩, গুলশানে আট, ভাটারায় তিন, চকবাজারে তিন, লালবাগে পাঁচ, শ্যামপুরে পাঁচ, কদমতলীতে চার, উত্তরা পূর্বে তিন, উত্তরা পশ্চিমে এক, বিমানবন্দরে এক, যাত্রাবাড়ীতে তিন ও ডেমরা থানার মামলায় দুজনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বরিশাল ও গৌরনদী : বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক কমিটির সদস্য ইশরাক হোসেনের গাড়িবহরে হামলার পর যুবলীগের নেতাকর্মীদের ওপর পালটা হামলার মামলায় বরিশালের আগৈলঝাড়া বিএনপির ১২ নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছেন। ঢাকার কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকে বুধবার রাতে তাদের গ্রেফতার করে বরিশালের গৌরনদী পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেফতার ব্যক্তিদের বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন গৌরনদী মডেল থানার এসআই আব্দুল হক সিকদার।

গ্রেফতার নেতাকর্মীরা হলেন, আগৈলঝাড়ার উপজেলার বাগধা ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আহসান খান আপাং, আগৈলঝাড়া উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাসুদ বক্তিয়ার, বিএনপি নেতা খসরুজ্জামান বাহাদুর, জালালী ইউনুস ওরফে জালিনুজ ভাট্টি, গোলাম মর্তুজা বাবলু, মোশারফ হোসেন, কাওসার মেহেদী, মাওলা সরদার, রিয়াজুল বক্তিয়ার, সিরাজ হাওলাদার, মোস্তাফিজুর রহমান পিন্টু ও রফিক মিয়া। তার সবাই আগৈলঝাড়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা। ২০২২ সালের ৫ নভেম্বর বরিশাল নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে যাওয়ার পথে গৌরনদীর মাহিলাড়া বাজারে ইশরাক হোসেনের গাড়িবহরে হামলা হয়। পরে ইশরাকের গাড়িবহরে থাকা বিএনপি নেতাকর্মীরা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর পালটা হামলা চালিয়ে মোটরসাইকেল ও দলীয় কার্যালয়ের আসবাবপত্র ভাঙচুরের অভিযোগে মামলা হয়।

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) : পল্টন সমাবেশে যোগ দিতে ঢাকা যাওয়ার পথে সাভারের আশুলিয়ায় আটক হয়েছেন ঘাটাইল বিএনপির ২৬ কর্মী। বুধবার সকালে আশুলিয়া থানা পুলিশ তাদের আটক করে। তাদের বৃহস্পতিবার ঘাটাইল থানায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন-আবুল কালাম আজাদ, রফিকুল ইসলাম তালুকদার, আবুল হারেছ, জামাল হোসেন, আ. কদ্দুছ, কামাল হোসেন, বিল্লাল হোসেন, বাবলু, আমিনুল ইসলাম, শরীফ সিকদার, মাসুদ রানা, মঞ্জুরুল ইসলাম, মোতাজুল ইসলাম, যথাক্রমে শহিদ, শরীফ রবিউল করিম, সাইফুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন পান্নু, কামরুজ্জামান ওরফে জামাল ভুইয়া, শাহাদৎ হোসেন শাকিব, শাহালম সিদ্দিকী, আক্তার হোসেন, মতিউর রহমান সিদ্দিকী সুমন, সাজ্জাদুর সিদ্দিকী বিজয়, ফারুক হোসেন, মির্জা নুর মোহাম্মদ। ঘাটাইল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. লোকমান হোসেন বলেন, প্রত্যেককেই ২০২২ সালের নাশকতা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পূর্বের খবরইসরাইল-হামাস সংঘাতের বিস্তার ঘটলে পরিণতি হবে ভয়াবহ: সৌদি যুবরাজ
পরবর্তি খবরএমপি মনিরা সুলতানা মনির উঠান বৈঠক জনসভায় পরিনত হয়েছে