প্রতিরোধ ব্যবস্থা দরকার দুর্যোগ আসার আগেই

‘অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের মতো দুর্ঘটনা রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা ও সচেতনতা জরুরি। যে কোনো দুর্যোগের পর কার্যক্রম পরিচালনার চেয়ে দুর্যোগ আসার আগেই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। তাহলে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি কম হবে। সেই সঙ্গে গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহারে সচেতনতা, আবাসিক ভবনে মিশ্র ব্যবহারে সচেতনতা এবং আইন ও বিধিমালা মেনে চলার বিষয়ে সব পক্ষকেই সচেতন থাকতে হবে।’ মঙ্গলবার বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির (বিডিআরসিএস) জলবায়ু ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা (ডিসিআরএম) বিভাগের ডিজি ইকো পাইলট প্রোগ্রাম্যাটিক পার্টনারশিপ (পিপিপি) প্রকল্পের আয়োজনে ‘সাম্প্রতিক অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ : নগর দুর্যোগ মোকাবিলা’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা এ কথা বলেন। এতে কারিগরি সহায়তা দিয়েছে ডিজি ইকোর আর্থিক ও পিপিপি প্রকল্প, আইএফআরসি, জার্মান রেড ক্রস, ড্যানিশ রেড ক্রস এবং সুইডিশ রেড ক্রস। রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কে দৈনিক যুগান্তর কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে গোলটেবিলের আয়োজন করা হয়। এতে সমন্বয়কের দায়িত্বে ছিল যুগান্তর।

পূর্বের খবরছবির জন্য একটি কাজ ছাড়া সব করতে রাজি নার্গিস ফাখরি
পরবর্তি খবরইউক্রেনকে ‘হতাশ’ করল যুক্তরাষ্ট্র