তার সঙ্গে আছেন একজন সুদখোর: প্রধানমন্ত্রী

সুশীল সমাজের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি এটা অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে বলি যে এরা এদেশ কখনো স্থিতিশীল থাকুক তা চায় না। ২০০৭ সালে যখন ইমার্জেন্সি হয় তখন তারা উৎফুল্ল। দুটি পত্রিকা আদা-জল খেয়ে নেমে গেল। তার সঙ্গে আছেন একজন সুদখোর। যে বিনিয়োগ করে আমেরিকায়। আমেরিকা একবারও জিজ্ঞেস করে না যে গ্রামীণ ব্যাংক, এটাতো একটি সংবিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান। সরকারের বেতন তুলতো যে এমডি। সে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার কোথা থেকে পেল, যে আমেরিকার মতো জায়গায় সামাজিক ব্যবসা করে, বিনিয়োগ করে। দেশে-বিদেশে করা এই বিনিয়োগের অর্থ কোথা থেকে আসে? এটা কি তাকে কখনও জিজ্ঞেস করেছে? জিজ্ঞেস করেনি। তাদের কাছ থেকে দুর্নীতির কথা শুনতে হয়। এদের কাছে মানবতার কথা শুনতে হয়।

সোমবার জাতীয় সংসদে সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আনা ১৪৭ বিধির সাধারণ প্রস্তাব ও অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা গরিবের রক্ত চোষা, যারা গরিবের টাকা পাচার করে শত কোটি টাকার মালিক হয়ে আবার আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পেয়ে যায়, আর এসব লোক এদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার চেষ্টা করে, মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলে।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে নাকি কিছুই করেনি। এ সময় তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এবং বিএনপির আমলে কী কী উন্নয়ন হয়েছে, তার তুলনামূলক চিত্র সংসদে তুলে ধরেন।

পূর্বের খবরশাহরুখের ওপর রাগ করে প্যান্ট ছিঁড়েন সানি, অতপর…
পরবর্তি খবরসারের দাম কেজিতে বাড়ল ৫ টাকা