এসএমএস খরচই ৯ কোটি ২০ লাখ টাকা

প্রশ্নের মুখে পড়েছে ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের নানা প্রস্তাব। প্রথম সংশোধনীর মাধ্যমে প্রায় দ্বিগুণ ব্যয় বাড়ানো হচ্ছে প্রকল্পটির। এক্ষেত্রে শুধু এসএমএস সেবার নামেই চাওয়া হয়েছে ৯ কোটি ২০ লাখ টাকা। সেই সঙ্গে অনুমতি ছাড়াই ২১ আইটেমের মধ্যে ১১টিতেই অতিরিক্ত দামে বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছে। এতে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে পরিকল্পনা কমিশন। পাশাপাশি বিধিনিষেধ থাকলেও বিদেশ ভ্রমণ খাতে খরচ বাড়িয়ে ৪৫ কোটি টাকা করার আবদার করা হয়েছে।

পূর্বের খবরসর্বসাধারণের জন্য খুলল ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের দ্বার
পরবর্তি খবরহুমকিতে আমদানিনির্ভর খাদ্য নিরাপত্তা